বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:১৫ অপরাহ্ন
ঘোষণা :
হামলা মামলা করে কমিউনিস্ট পার্টিকে দমানো যাবে না- মিহির ঘোষ গাইবান্ধায় ক্ষেতমজুর সমিতির উপজেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত এমদাদুল সভাপতি শফিকুল সাধারণ সম্পাদক গাইবান্ধায় ক্ষেতমজুর সমিতির বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ গাইবান্ধায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ গাইবান্ধায় কমিউনিস্ট পাার্টির বিক্ষোভ সমাবেশ যারা রাজনীতিকে খেলায় পরিণত করেছে তাদের লাল দেখিয়ে বিদায় করতে হবে – গাইবান্ধার জনসভায় প্রিন্স কাগজসহ শিক্ষা উপকরণের দাম কমানোর দাবিতে গাইবান্ধায় ছাত্র ইউনিয়নের বিক্ষোভ পল্লী রেশনিং চালুসহ ৬দফা দাবিতে গাইবান্ধায় ক্ষেতমজুর সমিতির বিক্ষোভ আদিবাসী সাঁওতাল হত্যার বিচার করতে হবে, তাদের বাপদাদার জমি ফেরত দিতে হবে – অধ্যাপক এম এম আকাশ ভাত ও ভোটের অধিকারের দাবিতে লড়াই জোড়দার করতে হবে পলাশবাড়ী ও গোবিন্দগঞ্জে কমিউনিস্ট পার্টির সমাবেশে লাকী আক্তার
শিরোনাম :
হামলা মামলা করে কমিউনিস্ট পার্টিকে দমানো যাবে না- মিহির ঘোষ গাইবান্ধায় ক্ষেতমজুর সমিতির উপজেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত এমদাদুল সভাপতি শফিকুল সাধারণ সম্পাদক গাইবান্ধায় ক্ষেতমজুর সমিতির বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ গাইবান্ধায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ গাইবান্ধায় কমিউনিস্ট পাার্টির বিক্ষোভ সমাবেশ যারা রাজনীতিকে খেলায় পরিণত করেছে তাদের লাল দেখিয়ে বিদায় করতে হবে – গাইবান্ধার জনসভায় প্রিন্স কাগজসহ শিক্ষা উপকরণের দাম কমানোর দাবিতে গাইবান্ধায় ছাত্র ইউনিয়নের বিক্ষোভ পল্লী রেশনিং চালুসহ ৬দফা দাবিতে গাইবান্ধায় ক্ষেতমজুর সমিতির বিক্ষোভ আদিবাসী সাঁওতাল হত্যার বিচার করতে হবে, তাদের বাপদাদার জমি ফেরত দিতে হবে – অধ্যাপক এম এম আকাশ ভাত ও ভোটের অধিকারের দাবিতে লড়াই জোড়দার করতে হবে পলাশবাড়ী ও গোবিন্দগঞ্জে কমিউনিস্ট পার্টির সমাবেশে লাকী আক্তার

ভাঙছে নদী, কাঁদছে মানুষ

সাপ্তাহিক দারিয়াপুর ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৯১

Hits: 7

তিস্তার পানি কমতে শুরু করলেও বিভিন্ন চরে দেখা দিয়েছে তীব্র নদী ভাঙন । অব্যাহত ভাঙনে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হরিপুর, বেলকা, তারাপুর, চন্ডিপুর শ্রীপুর ও কাপাসিয়া ইউনিয়নের বসতবাড়ি, আবাদি জমি, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার, রাস্তাঘাট নদীগর্ভে বিলিন হচ্ছে।
গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে হরিপুর ইউনিয়নের কাশিম বাজার, পাড়া সাদুয়া, চরমাদারী পাড়া, লখিয়ার পাড়, মাদারীপাড়া এলাকায় অব্যাহত ভাঙনে শতাধিক বসতবাড়ি ও ১০০ হেক্টর ফসলি জমি নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান নাফিউল ইসলাম জিমি জানান, কাশিম বাজার, পাড়া সাদুয়া, চরমাদারী পাড়া, লখিয়ার পাড়, মাদারীপাড়া এলাকায় ভাঙন অব্যাহত রয়েছে।
পানি যতই কমছে ভাঙন ততই বাড়ছে। ইতিমধ্যে ওই এলাকার ২টি মসজিদ নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। ভাঙনের মুখে পড়েছে শতাধিক বসতবাড়ি ও হাজারও একর ফসলি জমি। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ওয়ালিফ মন্ডল জানান, চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে খোজ নিয়ে জানা গেছে বিভিন্ন এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। সরকারি বরাদ্দ এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার জন্য বিভিন্ন দপ্তরে জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | সাপ্তাহিক দারিয়াপুর

কারিগরি সহায়তায় : শাহরিয়ার হোসাইন